রসুনের গুণাগুণ দেখুন

রান্নাঘর থেকে রসুন ইতোমধ্যে জায়গা করে নিয়েছে ওষুধের দোকানে। এর কারণ হল, রসুনের রয়েছে অসাধারণ কিছু ঔষধিগুণ ।রসুন,পেঁয়াজ এবং অন্যান্য ঝাঁঝালো সবজি অনেক ক্ষেত্রেই বেশ উপকারী। ক্যান্সার গবেষকদের মতে রসুন ও পেঁয়াজ নিয়মিত খেলে পুরুষরা প্রষ্টেট ক্যান্সারহাত থেকে রেহাই পেতে পারে। চীন দেশের গবেষকরা এ ব্যাপারে আরো উচ্চকিত। তারা বলেন, যারা প্রত্যহ ১০ গ্রামের অধিক পরিমাণে রসুন, পেঁয়াজ বা অন্যান্য ঝাঁঝালো স্বাদের সবজি খেয়ে আসছেন, তাদের প্রষ্টেট ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি যারা প্রত্যহ ২ গ্রামের কম খাচ্ছেন তাদের অর্ধেক (৫০%)। ১০ গ্রাম পুর্ণ করতে ৩ কোয়া রসুন বা ১ চা-চামচ পেঁয়াজের কুচিখেতে হবে। এটি খুবই সহজ। কাচা রসূন খাওয়া সবচেয়ে উপকারী ।রান্না করা রসুন বা পেঁয়াজ খেলে তা কম উপকারী হবে-এরুপ কোনো তথ্য আমাদের হাতে এখন পর্যন্ত আসেনি।

ইতোপূর্বে রসুন সম্পর্কিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, রসুন ইনফেকশন প্রতিরোধ করে। আরেক গবেষণায় দেখা গেছে, একটি মাঝারি সাইজের রসুনে এক লাখ ইউনিট পেনিসিলিনের সমান অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যক্ষমতা রয়েছে। তাছাড়া এরা রক্তের কোলষ্টেরল কমায় এবং সম্ভবত অন্যান্য ক্যান্সার বৃদ্ধির হার কমায়। ভারতীয় গবেষকরা আরো দাবি করেন,যারা প্রতিদিন রসুন খেয়ে আসছেন তাদের হৃৎপিন্ড হার্ট অ্যাটাকের পর কম ক্ষতির সম্মুখীন হয় এবং হৃৎপিন্ডের অপারেশনের পর তারা দ্রুত সেরে ওঠেন। মানুষ বাদে অন্যান্য প্রাণীর ক্ষেত্রের রসুন খেলে রক্তে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মাত্রা বাড়তে দেখা যাচ্ছে। তবে বড়ি হিসেবে রসুন খেলে তা খুব ফলদায়ক হয় না।রসুন থেকে এই উপকারিতা পাওয়ার জন্য গার্লিক ক্যাপসুলের চেয়ে তাজা রসুনকে ভেঙে বা চিবিয়ে গ্রহণ করাকেই বেশি কার্যকর বলে মনে করছেন গবেষকরা।

অতএব,কোলেস্টেরল হ্রাস,হৃদরোগ থেকে দুরে থাকতে এবং সামগ্রিকভাবে রোগহীন জীবন-যাপন করতে প্রতিদিন রসুন খেতে পারেন।

Share this post for your friend (সবার জন্য এই লিংকটি শেয়ার করুন)

PinIt
শুধু পাঠক হিসাবে নয় আমরা আপনাকে চাই একজন শিক্ষক ও লেখক হিসাবে। প্রয়োজনীয় ছবি সহ আমাদেরকে লিখুন ইমেইলে- etipsbdinfo@gmail.com