Air Condition এর লোড হিসাব ও কিছু ইনফো

নগর জীবনে একটু স্বস্তি দিতে এয়ারকন্ডিশনার (এসি) বা এয়ার কন্ডিশনিং সিস্টেম এর কোনো বিকল্প নেই। আমাদের ব্যস্ত জীবনে কর্ম স্থানটি আরামদায়ক করতে প্রয়োজন একটু শীতল ও পরিচ্ছন্ন পরিবেশ। অফিস/বাড়ির ধরন বুঝে এসি কিনতে হবে। এসি কেনার আগে ঘর কত স্কয়ার ফিট তা জানা দরকার। ঘরের আকার সর্বোচ্চ ১৪০ স্কয়ার ফিট পর্যন্ত হলে এক টন ক্ষমতাসম্পন্ন এসি কিনলেই চলবে। তবে ঘরের আকার ১৪০ থেকে ১৯৬ স্কয়ার ফিটের মধ্যে হয় তবে দেড় টন কার্যক্ষমতার এসি কিনতে হবে। ১৯৬ থেকে ২৪০ বর্গফুটের ঘরের জন্য দরকার ২ টন এসি। আবার যে রুমে এসি লাগাবেন তা যদি টপ ফ্লোরে হয় তবে ঘর আকারে ছোট হলেও তুলনামূলক বেশি ক্ষমতার এসি লাগাতে হবে। কারণ সাধারণত ভবনের উপরের তলায় সূর্যরশ্মির তেজ বেশি থাকে এবং ঘর বেশি গরম থাকে।

air-condition

স্প্লিট এসি কিনবেন না উইন্ডো?

১। এসির টাইপ কি কি?
স্প্লিট (Split) টাইপ: এটি আবাসিক ভবন, অফিস ও ছোট বাণিজ্যিক ভবনে বর্তমানে বেশি ব্যবহার করা হয়। এসি এর দুটি অংশ থাকে। বাহিরে সেট করা অংশের নাম কম্প্রেসর যেটা সবসময় অন থাকেনা, তাপমাত্রা সেটিং এর উপর অন/অফ হয় এবং এটাতেই এসির বাল্ক পাওয়ার গ্রহন করে। ভিতরের অংশের নাম ইভাপোরেটর যেটা সব সময় অন থাকে, এটাতে ফ্যান থাকে এবং কম ওয়াট গ্রহন করে।

উইন্ডো এয়ারকন্ডিশনার : এটি সাধারণত আবাসিক ভবনে ব্যবহার করা হয় এবং তেমন কোনো আনুসাঙ্গিক নির্মাণ কাজের প্রয়োজন হয় না।

প্যাকেজ এয়ারকন্ডিশনার : এটি সাধারণত বাণিজ্যিক ভবনে ব্যবহৃত হয় এবং এর সঙ্গে আনুসাঙ্গিক নির্মাণ কাজের প্রয়োজন হয়।

সেন্ট্রাল এয়ারকন্ডিশনিং সিস্টেম : এটি বড় ধরনের বাণিজ্যিক বা প্রাতিষ্ঠানিক ভবনে ব্যবহার হয় এবং এই সিস্টেটি বিভিন্ন এয়ার কন্ডিশনিং যন্ত্রের সম্মনয়ে কাজ করে।এই সিস্টেমের প্রধান যন্ত্রগুলো হলো-ওয়াটার চিলার, কুলিং টাওয়ার, ফ্যান কয়েল ইউনিট, পাম্প ইত্যাদি।

স্প্লিট এসি কিনবেন না উইন্ডো?
এখন উইন্ডো এসির চল প্রায় উঠেই গিয়েছে। উইন্ডো এসির দাম কম হলেও তাতে বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। ‌যেমন, উইন্ডো এসির হাওয়া গোটা ঘরে ছড়ায় না। উইন্ডো এসিতে আওয়াজ হয় ফলে ঘুমাতে অনেকের সমস্যা হয়। কখনো উইন্ডো এসি থেকে ছিটকে জল বা বরফ বেরোতে থাকে। কখনো এসি থেকেই চুঁইয়ে জল পড়ে ঘরের ভিতরে। ফলে রেস্ত থাকলে স্প্লিট এসি কেনাই ভাল।

AC কে টনে প্রকাশ করা হয় কিন্তু KW-এ প্রকাশ করা হয় না কেন?
এসিকে টনে প্রকাশ করা হয় তার কারন হল প্রতি ঘন্টায় কি পরিমাণ তাপ ঘর থেকে remove করতে পারে এর উপর ভিত্তি করে এসিকে তৈরি করা হয়। তার মানে এটা তাপের সাথে সম্পর্কিত। টন হল তাপের একটি একক। কোন এসি যদি প্রতি ঘন্টায় ১২০০০ BTU বা ১০০০ কিলোক্যালরি বা ৪১২০ কিলো-জুল তাপ remove করতে পারে তাকে এক টন এসি বলে। এজন্ন এসিকে টন হিসাবে তৈরি হয়।(BTU = British thermal unit)

১ টন এসি সমান কত KW ?
১ টন রেফ্রিজারেশন হল প্রায় ১২০০০ BTU/hr এর সমান বা ৩৫১৬.৮৫২৮ ওয়াট এর সমান।
One RT (Refrigeration Ton) = 3.5168528 kW…
1 RT = 3.5168528 kW
So,
The power P in kW = Power P in RT (Refrigeration Ton) times 3.5168528….
P(kW) = P(RT) × 3.5168528

Single Phase ২ টন AC-তে কত কারেন্ট নেয়?
মনে করা যাক,
Single Phase AC system
230V AC and Power factor = Cosθ = 0.95,
1 Ton = 3,516.8528 Watts = 3.516 kW.
2 Ton = 2 x 3.516 kW = 7.032kW = 7032W

Power in a Single Phase AC System
আমরা জানি,
P = VxI Cosθ=২ টন= ৭০৩২ ওয়াট
তাহলে
I = P / (V x Cosθ)….. Where Cosθ = Power factor
I = 7032W / (230V x .95)
I(কারেন্ট) = 32.18 A
তাহলে Single Phase এর ক্ষেত্রে ২ টন এসিতে কারেন্ট লাগে 32.18 Amp

২ টন এসি এর জন্য MCB এর সাইজ কত হবে?
আমরা উপরে ক্যালকুলেশন করে কারেন্ট বের করলাম
২ টন এসিতে Single Phase এ 32.18 A,
সাধারণত স্টারটিং এর সময় বেশি কারেন্ট নেয়। ফুল লোড আবস্থায় সব কিছু বিবেচনা করে দেখা যায় সিঙ্গেল ফেজ এর জন্য 40A MCB Class C এবং থ্রি ফেজের জন্য 20A Class C MCB ব্যবহার করলেই চলবে।

এসি এর বিদ্যুৎ বিল
মনে করেন আপনার ১ টন একটি এসি ১২ ঘন্টা ধরে চলছে তাহলে কি ১২*৩.৫১৬ = ৩৭.৮৭ ইউনিট বিদ্যুৎ খরচ হবে? না, এত হবেনা। কারন এই ১২ ঘন্টার মধ্যে দেখা যাবে ৪ ঘন্টা কম্প্রেসর চলবে, আর ৮ ঘন্টা ফ্যান চলবে। কম্প্রেসর এর মধ্যেই বেশি বিদ্যুৎ খরচ হয়, ফ্যানে কম (৮০ ওয়াট)। এসি এর টোটাল বিদ্যুৎ খরচ EER- Energy Efficiency Ratio এর উপর নির্ভর করে। EER- Energy Efficiency Ratio এর মান যত বেশি হয় বিদ্যুৎ বিল তত বেশি হয়। এসি কিনলে অবশ্যই EER- Energy Efficiency Ratio এর মান দেখে কিনতে হবে।
উদাহরণ (Not Exact)
1.5 ton of Ac is 5.2 Kw and EER of 3.50 so power consumption is
EER =(Cooling capacity /power consumption)
3.50=(5.2/E)
E=1.5 Kw
So power consumed is 1.5 KW
as you are using for 2hr
So Energy consumption is 1.5 kW x 2hr = 3 KWh
For 30 days = 3 * 30 = 90 KW [1 unit = 1kWh]

এসির প্রধান দুটি সমস্যা
১) এসির ক্ষেত্রে প্রধান সমস্যা হল ‘কুলিং’ বা ঠাণ্ডা করার ক্ষমতা কমে যাওয়া। এক্ষেত্রে এসির ভেতরের নেট খুলে ডাস্ট ক্লিনিং করে নিতে হবে। ব্যবহারকারী নিজেই সাধারণ উপায়ে এসির ইনডোর খুলে নেট ওয়াশ করে নিতে পারেন।
২) কুলিং একেবারে বন্ধ হয়ে গেলে বুঝতে হবে এসির ভেতরে গ্যাস ফুরিয়ে গেছে। এক্ষেত্রে সংশিষ্ট প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক সেবা প্রদানকারী প্রতিনিধিদের মাধ্যমে বা ভাল কোন ওয়ার্কশপ থেকে গ্যাস রিফিল করে নিতে পারেন।

এয়ার কন্ডিশনের পানি ডিস্টিলড ওয়াটার হিসাবে ব্যবহার
এয়ার কন্ডিশনের পানি প্রায় ৯৯% ডিস্টিলড ওয়াটার। আমি এ ধরনের পানি আপনারা গাড়ীর ব্যাটারিতে/যেকোন ব্যাটারিতে ব্যবহার করতে পারেন। গাড়ীর রেডিয়েটারে ব্যবহার করতে পারেন। কাপড় ধোয়া ও গোসলের কাজে ব্যবহার করতে পারেন। যেহেতু বাতাসের জলীয় বাষ্প থেকে এসি-র পানির উৎপত্তি তাই এতে আয়রন ও অন্যান্য লবণ অনুপস্থিত। কম ক্ষারত্বের জন্য অল্প সাবানে অধিক পরিমাণ ফেনা উৎপন্ন হয়।

BTU -British Thermal Unit
EER- Energy Efficiency Ratio
EER = cooling capacity of ac/power consumed by ac
COP- Coefficient of Performance

এই মডেলটি ডাউনলোড (পিডিএফ/ইমেজ) করুন-
Click Here to Download

Share this post for your friend (সবার জন্য এই লিংকটি শেয়ার করুন)

PinIt
শুধু পাঠক হিসাবে নয় আমরা আপনাকে চাই একজন শিক্ষক ও লেখক হিসাবে। প্রয়োজনীয় ছবি সহ আমাদেরকে লিখুন ইমেইলে- etipsbdinfo@gmail.com