সি.এ (CA) নিয়ে কিছু তথ্য

সি.এ. হলো একটা প্রফেশনাল ডিগ্রী। এই ডিগ্রী অর্জন করতে হলে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশুনার পাশাপাশি সি.এ. ফার্মে কাজ শিখতে হয়। দি ইনস্টিটিউট অব চাটার্ড একাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি) একটি স্বাধীন এবং সায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান যা চাটার্ড একাউন্টেন্সি (সি.এ) প্রফেশন এর সকল কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করে। আইসিএবি ইনস্টিটিউটটি ঢাকার কাওরান বাজারে সি.এ ভবনে অবস্থিত।

এবার আসুন সি.এ. পরতে হলে আপনার কি যোগ্যতা অর্জন করতে হবেঃ
১) আপনি যদি আপনার স্নাতক পড়াশুনা শেষ করে সি.এ. করতে চান তাহলে আপনাকে মিনিমাম সেকেন্ড ডিভিশন(২.০০) পেতে হবে সকল পরীক্ষায়( বি.বি.এ/ অনার্স/বি.বি.এস, এইচ.এস.সি/ এস.এস.সি)।
২) এসএসসি এবং এইচএসসি অথবা সমমানের উভয় পরীক্ষা মিলে যদি কোন শিক্ষার্থী কমপক্ষে GPA-9 এবং কমপক্ষে একটিতে A+(এসএসসি/এইচএসসি) পায় তাহলে সে সি.এ পড়তে পারবে।
৩)”ও লেভেল” এবং “এ লেভেল” শেষে সি.এ. পড়তে চাইলে আবার অন্য নিয়ম অনুসরন করতে হবে। নুন্যতম ৩৮ পয়েন্ট থাকতে হবে নুন্যতম ৫ বিষয়ে এবং সর্বচ্চো ০৭ বিষয়ে। এবং “এ লেভেলে” ১২ পয়েন্ট থাকতে হবে সর্বচ্চো ০৩ বিষয়ে। পয়েন্টগুলো হবে এভাবেঃ গ্রেড এ= ১০ পয়েন্ট, গ্রেড বি= ০৬ পয়েন্ট, গ্রেড সি=০৪ পয়েন্ট এবং এটা মনে রাখতে হবে গ্রেড সি এর পরে কোনো পয়েন্ট বিবেচনা করা হবে না।
তারপরও কিছু নিয়মকানুন পরিবর্তন হতে পারে, তাই সঠিক ইনফো পেতে অথবা আপনার ভর্তি হওয়ার যোগ্যতা আছে কিনা এবং অন্যান্য ইনফো এর জন্য ভিজিট করুন- http://www.icab.org.bd/ এখানে গিয়ে ICAB Entry Criteria দেখুন।

কোন ছাত্র-ছাত্রী যদি সি.এ. পড়তে চায় তাহলে তাকে সর্বপ্রথম সি.এ. ফার্মে cv জমা দিতে হবে। জানা মতে এখন ২০০টা কম/বেশী সি.এ. ফার্ম আছে (http://www.icab.org.bd/ এই ওয়েবসাইট থেকে এই লিস্ট ও ঠিকানা দেখতে পারেন) । Cv জমা দেওয়ার পর সি.এ. ফার্মগুলো মূলত একটা লিখিত পরীক্ষা নেয়(ভালো ফার্ম)। লিখিত পরীক্ষা মূলত Accounting, Auditing, Tax, English, General math(basic), Critical Reasoning এর উপর হয়ে থাকে। General math(basic), Critical Reasoning সকল ফার্মে আসে না । অল্প কিছু ফার্মে আসে। তাই সবাইকে বলবো অবশ্যই প্রস্তুতি নিয়ে নিবেন। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে যান তাহলে মৌখিক পরিক্ষার জন্য আপনাকে ডাকা হবে। মৌখিক পরিক্ষায় ভালো করলে আপনি আরটিকেলশিপ ছাত্র-ছাত্রী হিসাবে সিলেক্ট হবেন। তারপর তাকে ঐ ফার্মের মাধ্যমে আই.সি.এ.বি তে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে হবে। নির্ধারিত নিবন্ধন ফি নিবন্ধন করতে হয়। নিবন্ধনের তারিখ থেকে পরবর্তী ৩ বছর তাকে ঐ সি.এ ফার্মের অধীনে কাজ করতে হবে। এক্ষেত্রে তাকে কোন টাকা পয়সা খরচ করতে হবে না। বরং তাকে ফার্ম থেকে প্রত্যেক মাসে আই.সি.এ.বি এর নিয়ম অনুযায়ী একটি নিদ্দিষ্ট পরিমান ভাতা দেয়া হবে। আপনি যখন সি.এ. ফার্মে আরটিকেলশিপ ছাত্র-ছাত্রী হিসাবে সিলেক্ট হবেন তারপরে আপনাকে সি.এ. ফার্মের অধীনে কাজ শিখতে হয় ( যারা এইচ.এস.সি. এর পরে সি.এ. করবে তাদের আরটিকেলশিপ মেয়াদ ৪ বছর এবং যারা স্নাতক শেষ করে সি.এ. করবে তাদের আরটিকেলশিপ মেয়াদ ০৩ বছর) । একজন ছাত্র সি.এ. ফার্মের অধীনে যে বাস্তবিক জ্ঞান অর্জন করে তাকে আরটিকেলশিপ বলা হয়। সি.এ. ফার্মে একজন ছাত্র-ছাত্রীকে সকাল ৯.০০ থেকে বিকাল ৫.০০টা পর্যন্ত অফিস করতে হয় এবং মাঝে মাঝে অফিস থেকে বিভিন্ন কোম্পানি অডিট করতে যেতে হয়।

আসুন এবার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ নিয়ে আলোচনা করি । আপনাকে নিজ উদ্যেগে পড়াশুনা শুরু করতে হবে। সি.এ. ফার্মে কাজ শুরু করার পর একটি প্রবোশনাল সময় থাকে(২,৪,৬,৯মাস ফার্ম অনুযায়ী) । এর পরে আপনার প্রিন্সিপ্যাল স্যার আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য অনুমতি দিবেন। রেজিষ্ট্রেশন হয়ে গেলে শিক্ষাথীর্কে আই.সি.এ.বি কর্তৃক বিনামূল্যে বই, লাইব্রেরী কার্ড সরবরাহ করা হবে এবং কোচিং ক্লাস করানো হবে। এর ঠিক ১০ মাসের পরেই আপনি আপনার প্রথম পরীক্ষা দিতে পারবেন। কিন্তু সবাইকে বলবো রেজিস্ট্রেশন পাওয়ার আশায় বসে না থেকে যেদিন ফার্মে জয়েন করবেন সেদিন থেকেই পড়াশুনা করতে থাকবেন ।

রিলেটেড কিছু তথ্য-
দি ইন্সটিটিউট অফ কস্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট একাউন্টেন্টস অফ বাংলাদেশ (আইসিএমএবি) এটি একটি স্বায়িত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান যেখান থেকে বাংলাদেশের প্রফেশনাল কস্ট একাউন্টেন্ট সনদ প্রদান করা হয়। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তত্ত্ব্বাবধানে পরিচালিত হয়। ঢাকায় নীলক্ষেতের আইসিএমএ ভবন থেকে এর কার্যক্রম পরিচালিত হয়। ঢাকা ছাড়াও চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, রাজশাহীতেও আইসিএমএর শাখা আছে। বছরে তিনটি সেশনে পরীক্ষা হয়ে থাকে এপ্রিল, আগস্ট ও ডিসেম্বরে। প্রতিষ্ঠানটি ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ অ্যাকাউন্টেন্টস (IFAC), কনফেডারেশন অফ এশিয়ান অ্যান্ড প্যাসিফিক অ্যাকাউন্টেন্টস(CAPA), এবং সাউথ এশিয়ান ফেডারেশন অফ অ্যাকাউন্টেন্টস(SAFA) এর সদস্য। কোম্পানী আইন, ১৯৯৪ এর বিধান অনুসারে আইসিএমএবি-এর পেশাদার হিসাববিদগণ কস্ট অডিট কার্যক্রম সম্পাদন করে থাকে। এখানেও আপনি ভর্তি হতে পারেন, ভর্তির জন্য ইনফো / অন্যান্য তথ্য পেতে-  http://www.icmab.org.bd/ এই ওয়েবসাইট দেখতে পারেন।

FIA- Foundation in Accountancy
ACCA- The Association of Chartered Certified Accountants
CIMA – Chartered Institute of Management Accountants
CAT – Certified Accounting Technician
CIPFA – The Chartered Institute of Public Finance and Accountancy

এগুলোর জন্য http://lcbsdhaka.com/ এই ওয়েবসাইট থেকে বিস্তারিত জানতে পারেন।

এসব কোর্স নিয়ে ই টিপস এ আরও বিস্তারিত আলোচনা করা হবে, আজ কিছু ধারনা দেয়া হল। তবে দৈনিক পত্রিকা গুলো পড়বেন, দৈনিক পত্রিকাগুলোতে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি/বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে।

Share this post for your friend (সবার জন্য এই লিংকটি শেয়ার করুন)

PinIt
শুধু পাঠক হিসাবে নয় আমরা আপনাকে চাই একজন শিক্ষক ও লেখক হিসাবে। প্রয়োজনীয় ছবি সহ আমাদেরকে লিখুন ইমেইলে- etipsbdinfo@gmail.com