গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক যাবেন? দেশের সবচেয়ে বড় পার্ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের কিছু ছবি ও ইনফো শেয়ার করছি।

whatever
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক, গাজীপুর যেতে চাইলে উপরের ম্যাপ একটু দেখে নিন। আরো ভালো করে দেখতে চাইলে গুগল ম্যাপে দেখে নিন। dhaka to safari park লিখে গুগল ম্যাপে সার্চ দিলেই হবে। পেয়ে যাবেন ডিরেকশন। তারপরও বলছি- ঢাকা উত্তরা/টঙ্গী হয়ে, গাজীপুর চৌরাস্তা দিয়ে (জেকোন ভাবে গাজীপুর চৌরাস্তা আসতে পারলে হবে) মাওনা-ময়মনশিংহ রোডে মাওনার একটু আগে বাঘেরবাজার নামক স্থানে নামতে হবে। তারপর হাতের বাম দিকে উপরের ম্যাপে তীর দিয়ে দেখানো আছে প্রায় ৩ কিমি যেতে হবে। অবশ্য বাঘেরবাজারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের সাইনবোর্ড সহ একটি সুন্দর গেইট আছে। পার্কে ঢুকার পরিদর্শন/প্রবেশ ফি ও নিয়ম-কানুন জানতে ভিজিট করুন- http://www.safariparkgazipur.info.bd/

whatever
সেখানে এরকম অনেক পাখি দেখতে পাবেন। পাখির নাম ম্যাকাও। আপনি হাতে নিয়ে ছবি তুলতে পারেন। আমার ছবিগুলো এখানে দেইনি। এই পাখির রাজ্যে আপনাকে স্বাগতম।

whatever
এই পাখিদের প্রাসাদগুলো এরকম। আমি ছবি তুলেছিলাম, এই রকম একটি পাখির রাজ্য আমিও বানাবো। তবে এখানকার মত এত বেশি পাখি আমি সংগ্রহ করতে পারবনা, সেটা ভালো করে জানি। ইচ্ছা আছে ভবিষ্যতে কবুতর, বাজরিগার, লাভ বার্ড, কক্টেইল, ঘুগু ইত্যাদি দিয়ে সাজাবো আমার পাখির রাজ্য ।

whatever
এরকম নামে রেস্তোরা আছে পার্কের ভিতর। টাইগার রেস্তোরা… কিন্তু ভিতরে কোন জীবন্ত বাঘ নেই, তবে খেতে খেতে বাঘের কাছাকাছি থাকবেন, দেখবেন। বাঘ আপনি প্রটেক্টেড বাসে চড়ে দেখতে পারেন একেবারে বাঘের কাছে গিয়ে। এখানে বাঘের কাছে যেতে চাইলে আলাদা ফি দিয়ে প্রটেক্টেড বাসের টিকিট কেটে যেতে পারবেন। তারপরও সাবধানের কিন্তু মার নেই, মনে রাখবেন আপনি কিন্তু বাঘের কাছে যাচ্ছেন। কিছুদিন আগে ভার্সিটি পড়ুয়া এক ছেলের হাত গেছে, দেয়ালের ছিদ্র দিয়ে হাত ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন (পেপারে দেখেছিলাম)।

whatever
প্রজাপতি জোন। রঙ বেরঙের প্রজাপতির সমারোহ এখানে।

whatever
ফেন্সি কার্প গার্ডেন। দৃশ্যটা যেমন সুন্দর, এখানের সবকিছুই অনেক সুন্দর । সত্যিই মানুষের তৈরি সাফারি পার্ক হলেও প্রাকৃতিক মনে হবে সব কিছুই।

whatever
কুমিরের শুধু গল্প নয়, জীবন্ত কুমীরের কান্ড দেখবেন। এটা চিড়িয়াখানা নয়, এখানে সবকিছুই একটি নিদিরস্ট এলাকায় ছেড়ে দেয়া। আইন-কানুন মেনে না চললে বড় বিপদ হতে পারে।

এটি লিখেছেন ও ছবি তুলেছেন- রতন মিয়া, গাজীপুর সাফারি পার্ক থেকে।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন